আন্তর্জাতিক যোগ দিবস || #internationaldayofyoga

রবি বার ইংরাজী তারিখ ২১ জুন ২০১৫ ভোরে দিল্লির প্রাণকেন্দ্র ইন্ডিয়া গেটের কাছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উৎসাহ আর উদ্যোগে প্রথমবারের মতো বিশ্বজুড়ে পালিত হল "আন্তর্জাতিক যোগ দিবস"। #internationalyogaday

দিল্লির রাজপথে নানা বয়সী নানা জাতির ৩৫ হাজার মানুষের জমায়েতে ৩৫ মিনিট বিভিন্ন আসনের মাধ্যমে যার নেতৃত্ব দেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি নিজেই।



সাদা পাজামা আর ফুল হাতা পাঞ্জাবীর সঙ্গে তেরঙা স্কার্ফ গলায় ঝুলিয়ে রাজপথে বিছানো লাল মাদুরে যোগাসনে বসেন প্রধানমন্ত্রী। মাইকে যোগ গুরু রামদেবের নির্দেশনা অনুসরণ করে মোদির পেছনে বিভিন্ন আসনে যোগ চর্চা করেন অন্যান্য অংশগ্রহণকারীরা।



প্রধানমন্ত্রী সহ রাজপথে যোগ অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া সকলের কর্মকাণ্ড যেন সহজে দেখতে পাওয়া যায় সে জন্যে বিভিন্ন স্পটে মোট আটটি বড়ো ডিজিটাল স্ক্রিন বসানো হয়। এ ছাড়া নেওয়া হয় কড়া নিরাপত্তাব্যবস্থা। আট হাজারেরও বেশি নিরাপত্তা রক্ষী এ কাজে নিযুক্ত ছিল।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, ভারতীয় বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, আধা সামরিক বাহিনীর সদস্য ও পুলিশ মিলিয়ে প্রায় ৩৫ হাজার মানুষ ৩৫ মিনিটের এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন।

৩০ কোটি টাকা খরচ করে দিল্লির এই যোগ জমায়েতের আরেকটি লক্ষ্য ছিল একসঙ্গে সবচেয়ে বেশি মানুষের যোগসাধনের "গিনেজ রেকর্ড" গড়া, যা সার্বিক ভাবে সফলও হয়। স্বভাবতই প্রধানমন্ত্রীর টুইটার আর ফেইসবুকের পৃষ্ঠা সাধুবাদে ভরে ওঠে। শেষ এক সপ্তাহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া মাধ্যমে যোগ দিবস / আন্তর্জাতিক যোগ দিবস ছিল মুখ্য আলোচ্য বিষয়, যার রেশ এখনও অব্যাহত।

দিল্লির যে জনপথে প্রতিবছর ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের সামরিক কুচকাওয়াজ হয়, সেখানে মধ্য জুনের গনগনে সূর্যের নিচে দাঁড়িয়ে নাগরিকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শুরু করার সময় বলেন "এই রাজপথ একদিন যোগপথ হয়ে উঠতে পারে- কেউ কখনো ভেবেছিল?"



প্রধানমন্ত্রী বলেন "যোগ কেবল দেহকে নমনীয় করার ব্যায়াম নয়, এটা আত্মিক উন্নয়নেরও গুরুত্বপুর্ণ উপায়"। যে গুরুরা ভারতীয় এই প্রাচীন শাস্ত্রকে শত শত বছর ধরে রক্ষা করেছেন, তাদের প্রতি ভক্তি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন "মানব মনকে শান্তি আর সম্প্রীতির শিক্ষা দেওয়ার নতুন এক যুগের সূচনা হল"।

ভারতের এই উদ্যোগে সম্মতি দেওয়া এবং দিনটি পালনে বিশ্বের ১৭৭টি দেশের সমর্থনকে প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানিয়েছেন।
উল্লেখযোগ্য যে বিশ্বের ৪৭টি মুসলিম দেশেও বিশ্ব যোগ দিবস পালিত হয়েছে। #Yogaday



রাজপথ ছাড়াও বেলুড় মঠ তথা সমগ্র দেশ জুড়ে বিভিন্ন সংগঠন / সংস্থার উদ্যোগে দিনটি ব্যাপক ভাবে পালিত হয়।

বলাই বাহুল্য যে এই ঐতিহাসিক দিনটি বিশ্বব্যাপী সর্বসমক্ষে স্বীকৃতি পেলেও তাতে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ, কোন ভাবেই অংশগ্রহণ করেনি কংগ্রেস, সিপিএম বা তৃণমুেলর মত দল গুলি। আম আদমি পার্টির বিশিষ্ট নেতা কেজরিওয়াল বিভিন্ন ভাবে বিদ্রূপ/কটাক্ষ করলেও বিশেষ দিনটিতে রাজপথে উপস্থিত থেকে যোগ দিবসে অংশ নেন।

by Smt. Moumita Bose Chakraborty