মহা-সম্পর্ক অভিযান

আজ ৭ জুলাই ২০১৫ মহা-সম্পর্ক অভিযান এর উদ্বোধন সম্পর্কিত সম্মেলনে যোগ দিতে পশ্চিমবঙ্গে আসলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি শ্রী আমিত শাহ।

আসলেন মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা হরিয়ানায় বিজেপি সংগঠনের দায়িত্ব নিয়ে শূণ্য থেকে শুরু করে দলকে ক্ষমতায় নিয়ে আসার নেপথ্যে প্রধান কারিগর কৈলাস বিজয় বার্গিয়; যিনি আনুষ্ঠানিক ভাবে আজ থেকেই পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির ভারপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করলেন।

হাওড়া শরৎ সদনের এই সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব ছাড়াও  অংশ নেন ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, সিকিম, আন্দামান ও আরও অন্যান্য শাখার বিশিষ্ট নেত্রীবৃন্দ।

২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যে সদস্য সংখ্যা বাড়ানো ও তাদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধিই বিজেপির মুল লক্ষ্য। এসএমএস করে "সদস্য গ্রহণ অভিযান" এর মাধ্যমে ইতিমধ্যে ৪৩ লক্ষ সদস্য বাড়িয়ে ফেলেছে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি।

সমগ্র ভারত জুড়ে বিজেপির সদস্য সংখ্যা প্রায় ১১ কোটি, যার নিরিখে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) আজ বিশ্বের সর্ব বৃহত্তম রাজনৈতিক দল।

এসএমএস এর মাধ্যমে সদস্যতা গ্রহণ করা এই বিপুল সংখ্যক সদস্যের কাছে ব্যাক্তিগত ভাবে পৌছে যাওয়া ও দলীয় কর্মসুচীতে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহণে আহ্বান জানানোই হচ্ছেমহা-সম্পর্ক অভিযান এর উদ্দেশ্য।

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতি শ্রী রাহুল সিনহা জানিয়েছেন মোট সদস্য সংখ্যা ৪৩ লক্ষ থেকে বারিয়ে এক কোটিতে নিয়ে যাওয়া হবে। এই মর্মে রাজ্য ও জেলা স্তরের নেত্রীবৃন্দ শীঘ্রই ছোটো ছোটো দলে বিভক্ত হয়ে সমগ্র পশ্চিমবঙ্গে ছড়িয়ে পরবে এই অভিযান কে সফল করতে।