স্মার্ট শহর (SmartCity) || অটল মিশন (AMRUT) || প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা (PMAY)

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২৫ জুন আনুষ্ঠানিক ভাবে তিনটি বৃহদায়তন প্রকল্পের সুচনা করেছেন। পরবর্তী ৫ বছরের মধ্যে এই প্রকল্প রুপায়নের ব্যয় বাবদ ৩ লক্ষ্য-কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

 

প্রধানমন্ত্রীর 'ক্রমবর্ধমান নগরায়ন কার্যকরী ব্যবস্থাপনা' পুনরুত্থিত ভারত নির্মানের একটি প্রধান চ্যালেঞ্জ।

১০০ টা স্মার্ট শহর (Smart City)

সারা ভারতে ১০০ স্মার্ট শহর তৈরি ব্যয় বাবদ ৪৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

জনসংখ্যা ও আয়তনের উপর ভিত্তি করেই প্রতিটা রাজ্যে "স্মার্ট শহর" এর পরিসংখ্যান ও ধরন নির্ধারণ করা হয়েছে।
এদের মধ্যে উত্তর প্রদেশ সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য হিসেবে ১৩ টি স্মার্ট শহর পাবে, তামিলনাড়ু পাবে ১২ টি। কর্ণাটক ও গুজরাট পাবে ৬ টি করে, মহারাষ্ট্র পাবে ১০ টি স্মার্ট শহর।
পশ্চিমবঙ্গ ও রাজস্থানের জন্য নির্ধারিত হয়েছে ৪ টি করে স্মার্ট শহর; বিহার, অন্ধ্র প্রদেশ, পাঞ্জাব, উড়িষ্যা, হরিয়ানা, তেলেঙ্গানা, ছত্তিসগড় সহ বাকি রাজ্য গুলো পাবে ২ টি করে স্মার্ট শহর।
রাজধানী নয়া দিল্লি সহ জম্মু ও কাশ্মীর, কেরল, ঝাড়খণ্ড, অসম, হিমাচল, গোয়া, অরুণাচল এবং চন্ডিগড় প্রত্যেকে পাবে ১ টি করে।

বর্তমানে আপাত ভাবে দিল্লির ৪৪%, মুম্বাই এর ৩৬% এবং বেঙ্গালুরুর ৫৭% বাড়িকে স্মার্ট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

নিরাপত্তার নিরিখে সমগ্র ভারতে সুরক্ষিত বাড়ির জাতীয় গড় মাত্র ২১% যা প্রধানমন্ত্রীর 'স্মার্ট শহর' প্রকল্পের মাধ্যমে আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে।

৫০০ শহরের জন্য AMRUT (Atal Mission for Rejuvenation and Urban Transformation)

স্মার্ট শহরের প্রকল্পের পাশাপাশি ৫০০ আরবান/শহর গুলোকে অটল মিশন (AMRUT) এর আওতায় উন্নত শহরে রূপান্তরের জন্য সব রাজ্যের কাছে কেন্দ্রের তরফ থেকে প্রস্তাবিত শহর গুলোর তালিকা চাওয়া হয়েছিল; সেই তালিকা অনুসারে উত্তর প্রদেশে অনুমোদিত হয়েছে ৬৪ টি শহর।

বাকি রাজ্য গুলো যথাক্রমে :

তামিলনাড়ু: ৩৩
মহারাষ্ট্র: ৩৭
গুজরাট: ৩১
কর্ণাটক: ২১
অন্ধ্র প্রদেশ: ৩১
রাজস্থান: ৩০
পশ্চিমবঙ্গ: ২৪
বিহার: ২৭
উড়িষ্যার: ১৯
হরিয়ানা: ১৯
কেরল: ১৪
পাঞ্জাব: ১৭
তেলেঙ্গানা: ১৫ এবং
ছত্তীসগঢ়: ১০ টি আরবান/শহরের প্রস্তাব রেখেছে।

এই প্রকল্পে ১০ লক্ষ্যের বেশী জনসংখ্যা আছে এমন শহর বাবদ কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্য গুলোকে সামগ্রিক ব্যয়ের ৩০% এবং যে শহরের জনসংখ্যা ১০ লক্ষ্যের কম সেই শহর বাবদ ৫০% প্রদান অনুদান করবে।

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা (PMAY)

২০২২ সালের মধ্যে সবার জন্য আবাসন।
আগামী ৭ বছর দেশের সমস্ত শহরে জুড়ে নির্মাণ করা হবে ২ কোটিরও বেশী বাড়ি।

প্রধানমন্ত্রীর এই প্রকল্পের লক্ষ্য ২০২২ সালের মধ্যে সবার জন্য আবাসন নির্মাণ করা। কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যেক বাড়ি পিছু ১ লাখ টাকা থেকে ২.৫ লক্ষ্য টাকা অনুদান ধার্য করেছে। ক্ষেত্র বিশেষে গৃহ ঋণেও সুদের হার কম করা হবে।

মুলত নারী, তপশিলী / অনগ্রসর তপশিলী উপজাতি এবং সমাজের আর্থিক ভাবে দুর্বল (EWS) আরবান অঞ্চলের মানুষদের মাথায় পাকাপাকি ভাবে ছাদের ব্যবস্থা করাই এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

এই প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ আনুমানিক ৪ লক্ষ কোটি টাকা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কেন্দ্রীয় সরকার রিয়েল এস্টেট বাজারে বিনিয়োগ করবে। সুতরাং নিশ্চিত ভাবেই বলা যায় কেন্দ্রীয় সরকারের এই আবাসন প্রকল্পের মাধ্যমে ক্রমশ ঝিমিয়ে পরতে থাকা রিয়েল এস্টেট বাজারে শীঘ্রই গতি ফিরবে।

 by Smt. Moumita Bose Chakraborty